ঢাকারবিবার , ২৮ নভেম্বর ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইটি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. দিরাই শাল্লার খবর
  7. ধর্ম
  8. প্রবাস
  9. বিনোদন
  10. মুক্ত মতামত
  11. মুক্তমত
  12. মৌলভীবাজার
  13. রাজনীতি
  14. লিড নিউজ
  15. শিক্ষা

শান্তি চাইলে খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠান: মির্জা ফখরুল

কালনী ভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক::
নভেম্বর ২৮, ২০২১ ৫:৩৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সরকারকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতা চাইলে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠিয়ে দিন।’

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি’র চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে’ এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

খালেদা জিয়াকে দরকার উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, ‘বেগম জিয়াকে শুধু বিএনপির নয়, এ দেশের ১৮ কোটি মানুষের জন্য দরকার। এই একজন মাত্র নেত্রী আছেন, যিনি এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী। একজন মাত্র নেত্রী আছেন যিনি গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে পারেন। আমাদের অধিকারগুলোকে ফিরিয়ে দিতে পারেন। সেজন্য খালোদা জিয়াকে বিদেশে পাঠিয়ে তার চিকিৎসার দাবি জানাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সরকারের কাছে শান্তিপূর্ণভাবে এই দাবি জানাচ্ছি। আমরা বারবার বলছি, আপনারা (সরকার) তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠান। আমরা তো বুঝি না এবং আমাদের মাথায়ও আসে না- সমস্যাটা কোথায়? কেনো আইনের কথা বলছেন? আপনারা তো ভুল আইন দেখাচ্ছেন। দেশে যদি সত্যিকার অর্থে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চান, তাহলে দেশ নেত্রীকে পাঠিয়ে দিন। অন্যথায় এখানে কেউ শান্তি ও স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে পারবে না।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা খুব পরিষ্কার করে বলছি- বেগম খালেদা জিয়াকে আপনারা (সরকার) যে মামলায় সাজা দিয়েছেন, সেটা একটা মিথ্যা মামলা। সেখানে বিচারের নামে প্রহসন করা হয়েছে এবং ব্যক্তিগত, রাজনৈতিক এবং প্রতিহিংসার কারণে তাকে সাজা দিয়ে আটকে রেখেছেন।‘

তিনি বলেন, ‘বন্ধুরা আইন দেখায়- মোস্তাফিজুর বলেছেন- ‘আইন মানি না’। ওই আইনে তো পরিষ্কার করে বলা আছে, শুধুমাত্র সরকারই পারে বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে। এর বহু উদারণও আছে। আ স ম আবদুর রব জানিয়েছেন, রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সময় তিনি সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। জিয়াউর রহমান তাকে রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার জন্য জার্মানিতে পাঠিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ নেতা নাসিম সাহেবও তো জেলে ছিলেন। তাকেও চিকিৎসার জন্য জেল থেকে সরাসরি সিঙ্গাপুরে পাঠানো হয়েছিল। পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফেরও সাজা হয়েছিল, তিনিও জেলে ছিলেন। তাকেও চিকিৎসার জন্য জেল থেকে বিদেশে পাঠানো হয়েছিল।’ তিনি আরও বলেন, ‘আজকে ৪০১ ধারার কথা বলছেন? ৪০১ ধারাতেই আছে, আপনি পাঠাতে পারেন। মিথ্যা কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করে আপনি আইনের কথা বলছেন।’

শান্তিপূর্ণভাবে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবিতে বিএনপির আন্দোলনকে আরো বেগবান করার আহ্বান জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। প্রতিদিন চিকিৎসকরা তার জীবন রক্ষার জন্য পরিশ্রম করছেন। তাকে কেন বাইরে যেতে দেয়া হচ্ছে না? তাকে শর্ত সাপেক্ষে আটক রাখার কারণটা কি? এর একটাই কারণ, বেগম খালেদা জিয়াই একমাত্র নেত্রী যিনি বাংলাদেশের জন্ম থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত মানুষের জন্য কাজ করেছেন এবং কথা বলেছেন। তিনি যখন বিরোধী দলের নেত্রী ছিলেন তখন গণতন্ত্রের জন্য পথে পথে ঘুরে বেড়িয়েছেন।’

আয়োজক সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসবেক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, সহ দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হাসান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।