জামালগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পরিদর্শনে প্রশাসনের ১২ কর্মকর্তা

কালনী ভিউকালনী ভিউ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৩৮ PM, ০৯ জুলাই ২০২১

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় ভূমিহীনদের জন্য আশ্রায়ন প্রকল্প-২ এর নির্মিত ঘরগুলো পরিদর্শন করেছেন উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে উপজেলা ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষকে জায়গাসহ ঘর তৈরী করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মুজিব শতবর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে জামালগঞ্জ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ৩০১টি ভূমিহীন পরিবারকে ২ শতক জায়গাসহ পাকা ঘর তৈরী করেছেন উপজেলা প্রশাসান। তারই আলোকে ৬টি ইউনিয়নে আশ্রায়ন প্রকল্পের নির্মিত ঘরগুলো সরজমিনে পরিদর্শন করার জন্য উপজেলার ১২জন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

জানা যায় দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রনালয়ের অর্থায়নে জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়নে গোলামীপুর গ্রামের ৯টি ঘরের দায়িত্বে উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান, জামালগঞ্জ ইউনিয়নের শরীফপুর গ্রামে ৩৪টি ঘরের দায়িত্বে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ মোশারফ হোসেন, জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সুনাপুর গ্রামের ২৫টি ঘরের দায়িত্বে উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ আব্দুল মুকিত, সদর ইউনিয়নের ৪০টি ঘরের দায়ীত্বে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম রাব্বী জাহান, ফেনারবাক ইউনিয়নের তেঘরিয়া গ্রামের ১৬টি ঘরের দায়ীত্বে উপজেলা সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মোঃ আসাদ, সদর ইউনিয়নের ইউসুফ নগর গ্রামে ২৬টি ঘরের দায়ীত্বে দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা শিবেন্দ্র চন্দ্র পাল, সাচ্না বাজার ইউনিয়নে হরিহরপুর গ্রামে ৫০টি ঘরের দায়ীত্বে উপসহকারী প্রকৌশলী (এলজিইডি) মোঃ আনিছুর রহমান, বেহেলী ইউনিয়নের রহমতপুর গ্রামে ১৬টি ঘরের দায়ীত্বে উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক কার্যালয়ের মোঃ শামসুল হুদা ফয়সাল, বেহেলী ইউনিয়নের বাগহাটি গ্রামের ৩৭টি ঘরের দায়ীত্বে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা বিজন কানন দাস, একই ইউনিয়নের উলুকান্দি গ্রামের ৮টি ঘরের দায়ীত্বে উপসহকারী কৃষি অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলাম, একি ইউনিয়নের বদরপুর গ্রামে ২৫টি ঘরের দায়ীত্বে উপজেলা আনসার ভিডিভি কর্মকর্তা মোঃ ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী, এই একই ইউনিয়নের ৬টি ঘরের দায়ীত্বে সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুল জলিল মিলনসহ উপজেলার ৩০১টি ঘর পরিদর্শনসহ তদন্ত করে উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করার জন্য বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম রাব্বী জাহান জানান, উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য দায়ীত্ব দেওয়া হয়েছে। সে আলোকে ঘর সহ উপকার ভোগীদের আলাপ-আলোচনা করে জানা যায় ঘরের কোন ধরনের সমস্যা পাওয়া যায়নি।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব বলেন, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ভূমিহীন গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসনের লক্ষে জামালগঞ্জ উপজেলায় বরাদ্দকৃত নির্মিত ঘরগুলোর সরজমিনে পরিদর্শনের জন্য ১২জন কর্মকর্তাকে দায়ীত্ব দেওয়া হয়েছে। সরকার উদ্যোগ নিয়েছেন কেউ যেন ভূমিহীন গৃহহীন না থাকে। সেই লক্ষে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতে মুজিববর্ষ পালন উপলক্ষে সরকারের একটি বড় কর্মসূচির অংশ হিসাবে এই উপজেলায় ৩০১ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ২শতক জায়গা আধা পাকা টিনসেট ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর ঝড়বৃষ্টি এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিনা এবং জরুরী ভাবে কোন মেরামতের প্রয়োজন আছে কিনা তা সরজমিনে তদন্তক্রমে উপকার ভোগীদের সাথে আলোচনা করে অত্র উপজেলার ১২জন কর্মকর্তাকে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য দায়ীত্ব দেওয়া হয়েছে। সরজমিনে তদন্তে কোন প্রকার ত্রুটি থাকলে উপজেলা প্রশাসন তাৎক্ষনিক ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

আপনার মতামত লিখুন :