সংক্রমণের সর্বোচ্চ চূড়ার দিকে যাচ্ছে বাংলাদেশ

কালনী ভিউকালনী ভিউ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৩৬ PM, ০৩ জুলাই ২০২১

কালনী ভিউ ডেস্ক::

দেশে করোনার সংক্রমণ এবং মৃতু্য নিয়ে এরই মধ্যে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হলেও বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, আগামী কিছুদিনের মধ্যে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। অতীতের প্রবণতা এবং বর্তমান পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে সংক্রামক রোগ বিষয়ক সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর ধারণা করছেন, দেশে করোনা চলতি সংক্রমণের সর্বোচ্চ

তিনি বলেন, ঢাকা এবং চট্টগ্রামসহ বড় শহরগুলোতে সংক্রমণের হার আবারও বাড়তে শুরু করেছে এবং এই প্রবণতা আরও কিছুদিন অব্যাহত থাকবে। যেসব জায়গায় সংক্রমণ এরই মধ্যে অনেক বেশি হয়েছে, সেখানে হয়তো তা কমতে শুরু করবে। আবার নতুন নতুন জায়গায় সংক্রমণের হার বাড়তে থাকবে।

এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রতিদিন যে পরিসংখ্যান প্রকাশ করে, তাতে দেখা যাচ্ছে, ২৮ জুন থেকে ১ জুলাই পর্যন্ত চার দিনে কোভিড রোগী শনাক্তের মোট সংখ্যা ৩৩ হাজারের বেশি। গত চার দিন ধরে দেখা যাচ্ছে, নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় কোভিড রোগী শনাক্তের হার প্রায় ২৫ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি চারজনের মধ্যে একজন আক্রান্ত। তবে উত্তর-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোর কোথায়ও কোথায়ও শনাক্তের হার ৬০ শতাংশ পর্যন্ত রয়েছে।

আইইডিসিআর’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বলেন, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চার দিনে যে ৩৩ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে, এর মধ্যে দুই থেকে তিন শতাংশের মধ্যে যদি রোগ জটিল আকার ধারণ করে, তাহলে প্রতিদিনের মৃতের সংখ্যা আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

অন্যদিকে, গত এপ্রিল মাসে একদল গবেষক বলেছিলেন, জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ নাগাদ বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের পিক বা সর্বোচ্চ চূড়া আসতে পারে।

বাংলাদেশ কমো মডেলিং গ্রম্নপের আওতায় এই গবেষণা করেছেন একদল গবেষক। তারা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি কনসোর্টিয়ামের অংশ হিসেবে তা করেন। কমো মডেলিং গ্রম্নপে পিক বা সর্বোচ্চ চূড়া বলতে দিনে অন্তত ১০-১২ হাজার সংক্রমণ শনাক্ত হওয়াকে বোঝানো হয়।

আইইডিসিআর বলছে, বাংলাদেশে ৩০টির বেশি জেলায় শনাক্তের হার ১০ শতাংশের বেশি। আর ২০টির বেশি জেলায় সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশ কিংবা তার চেয়েও বেশি।

আপনার মতামত লিখুন :