শাল্লায় হামলা: দিরাই আ. লীগ নেতাসহ দুজন গ্রেপ্তার

কালনী ভিউকালনী ভিউ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:১৩ AM, ১১ মে ২০২১

কালনী ভিউ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জের শাল্লার উপজেলার নোয়াগাঁওয়ে হিন্দুদের বাড়িতে হামলায় ঘটনায় আরও দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। হামলার ভিডিও ফুটেজ দেখে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, দিরাই উপজেলার সরমঙ্গল ইউনিয়নের ধনপুর গ্রামের আব্দুল রশিদের ছেলে আওয়ামী লীগ নেতা হান্নান মিয়া (৫০) ও পার্শ্ববর্তী নাচনী চন্ডিপুর গ্রামের সোয়েব মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম (২২)।

সোমবার বিকালে জেলা ডিবি পুলিশের একটি দল তাদের নিজ গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে। গত ২ মে থেকে নোয়াগাঁও গ্রামের ঘটনায় তিনটি মামলা তদন্ত করছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে হান্নান মিয়া সরমঙ্গল ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও একই ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য।

হামলার ঘটনায় প্রধান আসামী যুবলীগ নেতা ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম স্বাধীন মিয়াসহ এ পর্যন্ত মোট ৫৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিবি পুলিশ।

দুইজনকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশের জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল বাহার বলেন, ‘নোয়াগাঁও গ্রামের ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখে দুইজনকে শনাক্ত করে সোমবার বিকালে তাদেরকে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মঙ্গলবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হবে।’

প্রসঙ্গত, নোয়াগাঁও গ্রামের ঝুমন দাস আপন নামের এক তরুণের ফেসবুক আইডি থেকে মাওলানা মামনুল হককে নিয়ে কুটুক্তি করে স্ট্যাটাসের জের ধরে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় থানায় ১৮ মার্চ দুটি পৃথক মামলা করা হয়। ১৫০০ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে একটি মামলার বাদী শাল্লা থানার এসআই আব্দুল করিম। নোয়াগাঁও গ্রামবাসীর পক্ষে অন্য মামলাটি করেছেন স্থানীয় হবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা বিবেকানন্দ মজুমদার বকুল।

এরপর ২৫ মার্চ আদালতে আরেকটি মামলা দায়ের করেন নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা সেই ঝুমন দাশের মা নিভা রানী দাশ। পৃথক তিনটি মামলায় আসামী করা হয়েছে দিরাই থানার সরমঙ্গল ইউনিয়নের চন্দ্রপুর ও নাচনী এবং শাল্লা থানার হবিবপুর কাশিপুর গ্রামের নামাংকিত ৫০ জনসহ ১৫০০ জনকে।

মামলার প্রধান আসামী ঘটনার উস্কানীদাতা নাচনী গ্রামের বাসিন্দা সরমঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য যুবলীগ নেতা শহিদুল ইসলাম স্বাধীন মিয়া। গত ২ মে থেকে তিনটি মামলা তদন্ত করছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। সোমবার পর্যন্ত মোট ৫৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এরমধ্যে ৯ জন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :