শাল্লায় সংখ্যালঘুদের বাড়িতে হামলা–ভাংচুর

প্রকাশিত: ৬:৫৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২১

কালনী ভিউ ডেস্ক::

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা মামুনুল হককে নিয়ে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে সুনামগঞ্জের শাল্লার একটি গ্রামে সংখ্যালঘুদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। আজ বুধবার সকালে উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ ওই গ্রামে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এর আগে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ নোয়াগাঁও গ্রামের গোপেশ দাসের ছেলে ঝুমন দাসকে (২৫) আটক করে।

পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত সোমবার দিরাই উপজেলা সদরে হেফাজতে ইসলামের একটি সমাবেশ ছিল। এতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা মামুনুল হকসহ অন্য নেতারা বক্তব্য দেন। ওই রাতে মামুনুল হককে নিয়ে শাল্লা উপজেলার ঝুমন দাস ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেন—এমন অভিযোগ তুলে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরের দিন মঙ্গলবার রাতে পুলিশ শাল্লার শ্বাসখাই বাজার থেকে ঝুমনকে আটক করে। ফেসবুক পোস্টের জের ধরে আজ বুধবার সকাল ৯টার দিকে নোয়াগাঁওয়ের আশপাশের কয়েকটি গ্রামের লোকজন জড়ো হয়ে লাঠিসোঁটা নিয়ে ওই গ্রামে গিয়ে হামলা চালান। এ সময় নোয়াগাঁও গ্রামের বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। হামলা হতে পারে, এমন আশঙ্কায় ওই গ্রামের লোকজন আগেই বাড়িঘর ছেড়ে পাশের গ্রাম ও হাওরে আশ্রয় নেন।

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হক বলেন, ফেসবুকে হেফাজত নেতাকে নিয়ে উসকানিমূলক পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে ঝুমনকে আটক করা হয়েছে। নোয়াগাঁও গ্রামের পরিস্থিতি এখন শান্ত। কয়েকটি ঘরের বেড়া ও আসবাব ভাঙচুর করা হয়েছে। গ্রামে পুলিশ মোতায়েন আছে। যারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে। আটক ঝুমন দাসের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।